ঢাকা, রবিবার - ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

আলোচিত সংবাদ

‘অবৈধ’ সরকারকে হটানোর জন্য জাতীয় ঐক্য গড়তে হবে: মির্জা ফখরুল

ছবিঃ সংগৃহীত

Share on facebook
Share on whatsapp
Share on twitter
Share on linkedin

বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকলে দেশের অর্থনৈতিক সংকট সমাধান সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে চলমান অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংকট একটি জাতীয় সংকটে পরিণত হয়েছে। এই দুর্বিষহ জাতীয় সংকট থেকে মুক্তি পেতে ধর্ম, বর্ণ, জাতি নির্বিশেষে সবাইকে রাজনৈতিক মতপার্থক্য ভুলে এই ‘অবৈধ’ সরকারকে হটানোর জন্য জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে।

মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

দেশের অর্থনৈতিক সংকট থেকে উত্তরণে বিএনপির পক্ষ থেকে কোনো প্রস্তাব আছে কি না জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, এই সংকটের একটাই সমাধান, তা হলো সরকারকে সরে যেতে হবে। সরকার সরে গেলেই দেশে ট্রাস্ট, ক্রেডিবিলিটি অবস্থা সৃষ্টি হবে। তখন এই সমস্যাগুলো সমাধান করার জন্য যোগ্য ব্যক্তি, যারা কাজ করতে পারেন, তাদেরকে নিয়ে এসে সমস্যাগুলো দ্রুত সমাধান করা সম্ভব হবে।

আরও পড়ুন  দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু হবে: মেজর ইব্রাহিম

সরকার পতন ছাড়া দেশের সমস্যা সমাধান সম্ভব নয় বলেও উল্লেখ করেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, এই সরকারকে রেখে সমস্যা সমাধান সম্ভব নয়। কারণ এরা এতোটাই দুর্নীতি পরায়ন হয়ে গেছে যে এরা ব্যাংকগুলোকে শেষ করে দিয়েছে। এরা একটা মিথ্যা প্রচারণা দিয়ে অর্থনীতিকে সচল রাখার চেষ্টা করছে।

বিএনপি দেশে এতো সংকট দেখে, কিন্তু সরকার তো কোনো সংকট দেখে না, এমন প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকারের সংকট না দেখার কারণ হচ্ছে তাদের কোনো জবাবদিহিতা নেই। তারা জনগণের দ্বারা নির্বাচিত নয়। জনগণের ভোটে নির্বাচিত হলে সংসদে তাদের জবাবদিহিতা থাকতো। জনগণের জবাবদিহিতা করতে হতো। তারা সবসময় একটা মিথ্যা প্রচার-প্রচারণা করে, ভয়-ভীতি, চাপ সৃষ্টি করে গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করে। এটা হচ্ছে যারা ফ্যাসিস্ট হয় এই প্রচারণা তাদের জন্য জরুরি হয়। একটা মিথ্যা ধারণার মধ্যে জনগণকে রাখতে চায়। কিন্তু এর ভুক্তভোগী জনগণ তাদের এই কথা ভোলে না।

আরও পড়ুন  বাংলাদেশকে আবার অন্ধকার যুগে ফেরাতে চায় বিএনপি: প্রধানমন্ত্রী

তিনি বলেন, পুরো ব্যবস্থাতে লাভবান হচ্ছে মুষ্টিমেয় কিছু মানুষ। যারা এই সরকারের সঙ্গে জড়িত। তারা ব্যবসা-বাণিজ্য বিভিন্ন জায়গায় লাভবান হচ্ছে।

সাংবাদিবকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের ফাইট হচ্ছে ওনার (খালেদা জিয়ার) মুক্তি। ওনার মুক্তিটা আমাদের সবচেয়ে বড় প্রয়োজন। রাজনীতিতে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারটাও মুক্তির ওপর নির্ভর করবে।

তিনি আরও বলেন, সামষ্টিক অর্থনীতির স্থিতিশীলতার জন্য আর্থিক খাতের সংস্কার সাধন অত্যাবশ্যক। টেকসই অর্থনীতির প্রয়োজনে সামষ্টিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনার উন্নতি এবং সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করা দরকার। কর-শুল্ক, আর্থিক খাত, ব্যাংকিং সেক্টর, বাজেট ব্যবস্থাপনা এবং বাণিজ্য নীতির সংস্কার আবশ্যক। এজন্য প্রয়োজন দুর্নীতিমুক্ত আইনের শাসন এবং প্রকৃত অর্থেই জনগণের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত একটি গণতান্ত্রিক সরকারব্যবস্থা।

আরও পড়ুন  অস্ত্রোপচারের পর নিবিড় পর্যবেক্ষণে খালেদা জিয়া

বিএনপির মহাসচিব বলেন, বিএনপি আশা করে বাংলাদেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও আর্থিকখাতে কার্যকর সংস্কার সাধনে একটি প্রকৃত গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য আইএমএফ বিশেষ সহযোগিতার হাত বাড়াবে।

ট্যাগঃ

আলোচিত সংবাদ