ঢাকা, শুক্রবার - ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

চট্টগ্রামে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ, আটক ১৮

ছবিঃ সংগৃহীত

Share on facebook
Share on whatsapp
Share on twitter
Share on linkedin

চট্টগ্রামে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ১৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ১৮ জনকে আটক করেছে পুলিশ। 

সোমবার (১৬ জানুয়ারি) বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে নগরীর কাজীর দেউড়ি এলাকায় এ সংঘর্ষ হয়। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে নগরের নাসিমন ভবনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ-সমাবেশের আয়োজন করেছিল চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি। সেখানে মিছিল নিয়ে আসার পথে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বিকালে নাসিমন ভবনের দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ চলছিল বিএনপির। সমাবেশে যোগ দিতে যুবদলের একটি মিছিল কাজীর দেউড়ি মোড়ে এলে থামিয়ে দেয় পুলিশ। এ সময় কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে শুরু করেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ফাঁকা গুলি ছুড়তে থাকে পুলিশ। একপর্যায়ে রাস্তায় গাড়ি ভাঙচুর শুরু করেন নেতাকর্মীরা। সেইসঙ্গে পুলিশের একটি মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেন। এতে কাজীর দেউড়ি মোড় থেকে শুরু হওয়া সংঘর্ষ নুর মোহাম্মদ সড়কের পুরাতন বিমান অফিস, স্টেডিয়াম এলাকা, আলমাস সিনেমার মোড় এবং ওয়াসা মোড় পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে।

আরও পড়ুন  হাটহাজারীতে সড়ক দুর্ঘটনায় যুবকের মৃত্যু

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাবেক সহ-দফতর সম্পাদক মো. ইদ্রিস আলী বলেন, বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ চলছিল। মহানগর যুবদল মিছিল নিয়ে দলীয় কার্যালয়ের সামনে আসার সময় পুলিশ বাধা দেয় এবং লাঠিচার্জ করে। বিনা উসকানিতে পুলিশ দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করেছে। এর থেকে ঘটনার সূত্রপাত। পুলিশ মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে। পুলিশের লাঠিচার্জে ১৫ নেতাকর্মী আহত হন। অন্তত ২০ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন  ফকিরাপুলের আবাসিক হোটেল থেকে মরদেহ উদ্ধার

নগর পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বিএনপির মিছিল থেকে বিনা কারণে পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। গাড়ি ভাঙচুর ও পুলিশের মোটরসাইকেলে আগুন দিয়েছে নেতাকর্মীরা। পুলিশের বেশ কয়েকজন সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এখন পর্যন্ত ১৮ জনকে আটক করা হয়েছে। অভিযান চলমান আছে।

ট্যাগঃ