ঢাকা, রবিবার - ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের কাছেই ভয়াবহ আগুন, এখনও চলছে উদ্ধারকাজ

ছবিঃ সংগৃহীত

Share on facebook
Share on whatsapp
Share on twitter
Share on linkedin

জগন্নাথ ধামে অগ্নিকাণ্ড। তীর্থক্ষেত্র পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের কাছেই লাগল ভয়াবহ আগুন।

বুধবার (৮ মার্চ) রাতে মন্দির চত্বর সংলগ্ন শপিং মলে হঠাৎই আগুন লাগে , যা ১২ ঘণ্টার চেষ্টাতেও নিয়ন্ত্রণে আনা যায়নি।

ঘটনাস্থলে কাজ করছেন শতাধিক দমকল কর্মী এবং ওড়িশার বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী। রয়েছে বেশ কিছু অগ্নি নির্বাপক ইঞ্জিন। তবে আগুন নিয়ন্ত্রণ করতে কত সময় লাগবে, তা বৃহস্পতিবার (৯ মার্চ) বেলা ১১টা পর্যন্ত স্পষ্ট করে জানাতে পারেনি দমকলবাহিনী।

স্থানীয় সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে ৪০টিরও বেশি দোকান। ঘটনাস্থলে আগুন নেভানোর চেষ্টা করছে দমকল বাহিনী।

আরও পড়ুন  পোশাক শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, বাজারের পাশেই রয়েছে বেশ কয়েকটি হোটেল। সেগুলিও ঢেকে গিয়েছে কালো ধোঁয়ায়।

স্থানীয় সংবাদ সংস্থা ওড়িশা টিভি জানিয়েছে, বুধবার রাত ৮টা নাগাদ প্রথম আগুন লেগেছিল গ্র্যান্ড রোডের মারীচিকোট চকের লক্ষ্মী মার্কেট কমপ্লেক্সের একটি জামাকাপড়ের দোকানে। সেখান থেকই আগুন ছড়িয়ে পড়ে বাজার চত্বরের গায়ে গায়ে ঘেঁষা দোকানগুলিতে। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত অন্তত ৪০টি দোকান আগুনে সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। দমকল বাহিনী জানিয়েছে, যে সময় আগুন লাগে, সে সময় পুরীর মন্দিরের কাছেই ওই বাজার চত্বরে হাজির ছিলেন বহু পর্যটক। তাঁদের উদ্ধার করতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেন দমকল কর্মীরা। তবে শেষ পর্যন্ত ওই বাজার চত্বর থেকে সমস্ত পর্যটককেই নিরাপদে উদ্ধার করা গিয়েছে বলে জানিয়েছেন দমকল কর্মীরা।

আরও পড়ুন  বাংলাদেশে শাখা খুলবে রাশিয়ার 'এসবারব্যাংক'

বাজার সংলগ্ন হোটেলগুলি থেকেও অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় পর্যটকদেরও। দমকল বাহিনী সূত্রে খবর, ওই বাজার চত্বরে বেশ কিছু গ্যাস সিলিন্ডারও মজুত করা ছিল। সেই সব সিলিন্ডার দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। তা না হলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারত।

পুরীতে সারা বছরই থাকে পর্যটকেদের ভিড়। তবে সম্প্রতি মাধ্যমিকসহ বেশ কিছু পরীক্ষা শেষ হওয়ায় পুরীতে এই মুহূর্তে পর্যটকদের সংখ্যা আরও বেশি। আগুনের খবরে ইতিমধ্যেই আতঙ্ক ছড়িয়েছে পর্যটকদের মধ্যে। তবে স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই। মন্দির চত্বর সংলগ্ন গোটা এলাকাটিকে ব্যারিকেড করে চলেছে আগুন নেভানোর কাজ। প্রশাসন যথাবিধি পদক্ষেপ করছে। দ্রুত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে বলেও আশ্বস্ত করেছে প্রশাসন। তবে আগুন নেভাতে আরও কত সময় লাগবে, তা স্পষ্ট করে জানাতে পারেননি দমকল বাহিনীর মুখপাত্র।

আরও পড়ুন  ফেসবুকে ‘পোক’ ব্যাক করার আগে ভাবুন, নয়তো বিপদ

তিনি বলেন, আগুন অনেকটা ছড়িয়ে পড়ায় নিয়ন্ত্রণে আনতে সময় লাগছে। তবে আশা করছি কয়েক ঘণ্টার মধ্যে আগুন নিভবে।

সূত্র- আনন্দবাজার পত্রিকা

ট্যাগঃ