ঢাকা, রবিবার - ১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিকারপুরে শীর্ষ ইয়াবা কারবারি চক্রের ২ সদস্য আটক

ওমর হাবিব আসিফ (২২) ও মো. সুমন ওরফে বিপ্লব (২১) 

Share on facebook
Share on whatsapp
Share on twitter
Share on linkedin

হাটহাজারী উপজেলার শিকারপুরে অভিযান চালিয়ে ১০০টি ইয়াবাসহ ওমর হাবিব আসিফ (২২) ও মো. সুমন ওরফে বিপ্লব (২১)  নামে দুই মাদক কারবারিকে আটক করেছে মদুনাঘাট তদন্ত কেন্দ্র পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) রাতে মোক্তল হোসেন টেন্ডল বাড়ীর হেফজখানার মেইন গেইটের সামনে অভিযান চালিয়ে এ দুুই মাদক কারবারিকে আটক করা হয়।

আটকের সত্যতা নিশ্চিত করেন মদুনাঘাট তদন্ত কেন্দ্রের আইসি মহিউদ্দীন সুমন।

আটক মাদক কারবারি ওমর হাবিব আসিফ (২২) ১৪ নং শিকারপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের মোক্তাল হোসেন টেন্ডল বাড়ির মোঃ দিদারের ছেলে। মো. সুমন ওরফে বিপ্লব (২১) একই ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের কুয়াইশ ভরা পুুকুর বাবুর ভাড়াঘরের মো. শাহরাজের ছেলে।

আরও পড়ুন  আনোয়ারায় পানিতে ডুবে চার বছরের শিশুর মৃত্যু

আসিফ ও বিপ্লব দীর্ঘদিন যাবৎ এ ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত বলে বিশ্বস্থ সূত্রে জানা গেছে। আসিফ গত অক্টোবর’২০২৩ এর শেষের দিকে ইয়াবাসহ পুলিশের হাতে আটক হয়। আসিফ শীর্ষ ইয়াবা কারবারি জিয়ার সহযোগী হিসেবে পরিচিত। সাম্প্রতিক আসিফ জামিনে মুক্ত হয়ে এলাকায় আরও বেপরোয়াভাবে ইয়াবা বিক্রি করছিল বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

এদিকে আটক বিপ্লব কুয়াইশ ভরাপুকুর এলাকার মাদক সম্রাট পারভেজ ওরফে প্যাকেজ পারভেজের সহযোগী বলে জানা গেছে। মো. পারভেজ শিকারপুর ইউনিয়নের ভরাপুকুর এলাকার ৭নং ওয়ার্ডের হারুন চেয়ারম্যান বাড়ীর মৃত আবদুল হামিদের ছেলে।

আরও পড়ুন  পটিয়ায় আ.লীগ নেতাকে মারধর: ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

মদুনাঘাট তদন্ত কেন্দ্রের অফিসার ইনচার্জ (আইসি) মহিউদ্দীন সুমন ভয়েস অফ এশিয়াকে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি, শিকারপুর মোক্তল হোসেন টেন্ডলের বাড়ীতে বড় একটি ইয়াবার চালান নিয়ে সংঘবদ্ধ একদল ইয়াবা কারবারি অবস্থান করছেন। এ খবরের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশের একটি আভিযানিক দল ওই এলাকায় কৌশলগত অবস্থান গ্রহণ করে এবং ইয়াবা কারবারির অবস্থান শনাক্ত করে। অবশেষে ১০০টি ইয়াবাসহ ওমর হাবিব আসিফ এবং মো. সুমন ওরফে বিপ্লবকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করা হয়।

আরও পড়ুন  চট্টগ্রামে জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে গলা কেটে হত্যার হুমকি

তিনি আরও বলেন, আটক দুইজন দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন জায়গা থেকে পাইকারী ইয়াবা সংগ্রহ করে বিশেষ কৌশলে এলাকায় বিক্রি করে আসছিলেন। আটকের পর দুজনকে হাটহাজারী থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এ বিষয়ে মডেল থানায় মাদক নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা রুজু করা হয়েছে।

বিশেষ অভিযানে নেতৃত্ব দেন চৌকস পুলিশ কর্মকর্তা আইসি মহিউদ্দীন সুমন এবং এএসআই সুমন হোসেন।