ঢাকা, বৃহস্পতিবার - ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ের ৩ ইউনিয়নে ১৪টি মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর

ছবিঃ সংগৃহীত

Share on facebook
Share on whatsapp
Share on twitter
Share on linkedin

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ৩ ইউনিয়নের ১৪টি মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা।

রবিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) ভোর রাতে পাড়িয়া ইউনিয়নের জাউনিয়া কলেজপাড়া, চাড়োল সাবাজপুর পশ্চিমনাথপাড়া, ও ধনতলা ইউনিয়নে সিন্দুরপিন্ডির বিভিন্ন মন্দিরে প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে মন্দির পরিচালনা কমিটি।

ধনতলা ইউনিয়নের পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও সিন্দুরপিন্ডি মন্দির কমিটির সভাপতি জোতিময় সিংহ বলেন, প্রায় অর্ধশত বছর ধরে আমরা মন্দিরে পূজা করে আসছি। কোনও দিন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। আজ ভোর রাতে কোনও একসময় দুর্বৃত্তরা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটিয়েছে। এই এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন আতঙ্কে রয়েছে। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত এবং জড়িতদের দ্রুত বিচারের দাবি জানাই।ঠাকুরগাঁওয়ে এক রাতে ১৪ মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুরচাড়োল ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান দিলিপ কুমার চ্যাটার্জী বাবু বলেন, কে বা কারা রাতে রাস্তার ধারে থাকা কয়েকটি মন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর করেছে। সকালে মন্দির কমিটির লোকজন খবর দিলে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রশাসনকে জানাই।

আরও পড়ুন  মন্দিরে আগুন: গণপিটুনিতে নিহত ২, নিরাপত্তায় বিজিবি মোতায়েন

খবর পেয়ে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিপুল কুমার, উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আসলাম জুয়েল, বালিয়াডাঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল আনাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ ধরনের ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেজন্য জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন সচেতনমূলক পদক্ষেপ নেবে।

আরও পড়ুন  পটিয়ার বুড়াকালি মন্দিরে দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনায় সন্দেহভাজন গ্রেপ্তার ২

জেলা পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, দেশের শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতিকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে এ ঘটনা উদ্দেশ্যে প্রণোদিতভাবে ঘটিয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। দ্রুতই জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনকে আতঙ্কিত না হয়ে পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে বলেছেন পুলিশ সুপার।

ট্যাগঃ

আলোচিত সংবাদ